থার্মিট ওয়েল্ডিং কাকে বলে? থার্মিট ওয়েল্ডিং কত প্রকার ও কি কি? বিস্তারিত আলোচনা

থার্মিট ওয়েল্ডিং কাকে বলে?

থার্মিট ওয়েল্ডিং একটি বিশেষ ধরনের ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়া যা উচ্চ তাপমাত্রায় রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে ধাতু জোড়া লাগানোর জন্য ব্যবহৃত হয়।

থার্মিট ওয়েল্ডিং কত প্রকার ও কি কি?

থার্মিট ওয়েল্ডিং মূলত দুটি প্রকারে বিভক্ত:

1. মূল থার্মিট ওয়েল্ডিং (Standard Thermite Welding):

এটি সবচেয়ে সাধারণ এবং ঐতিহ্যবাহী থার্মিট ওয়েল্ডিং পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে, অ্যালুমিনিয়াম গুঁড়ো এবং লোহার অক্সাইডের মিশ্রণকে ইগনিটার ব্যবহার করে জ্বালানো হয়, যা তীব্র তাপ এবং গলিত লোহা তৈরি করে। গলিত লোহা তারপর জোড় লাগানোর এলাকায় ঢালাই করা হয়, যেখানে এটি ঠান্ডা হয়ে জমাট বাঁধে এবং দুটি ধাতব অংশকে একত্রিত করে।

2. চাপযুক্ত থার্মিট ওয়েল্ডিং (Pressure Thermite Welding):

এই পদ্ধতিতে, গলিত লোহাকে জোড় লাগানোর এলাকায় চাপ প্রয়োগ করা হয়, যা আরও শক্তিশালী এবং নির্ভরযোগ্য জোড় তৈরি করে। চাপ প্রয়োগ করার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে, যেমন চাপযুক্ত ছাঁচ, হাইড্রোলিক প্রেস, বা বিস্ফোরক।

থার্মিট ওয়েল্ডিং মূলত একই নীতির উপর ভিত্তি করে কাজ করে, তবে বিভিন্ন প্রয়োগ ও প্রযুক্তিগত পার্থক্যের কারণে এর কয়েকটি প্রকারভেদ রয়েছে। প্রধান প্রকারগুলি হল:

1. প্রেশার থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • এই পদ্ধতিতে গলিত ধাতু ঢালার পর চাপ প্রয়োগ করা হয়।
  • এটি সাধারণত রেলপথে ব্যবহৃত হয়।
2. প্রেশারলেস থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • এখানে অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগ করা হয় না।
  • পাইপলাইন ও স্ট্রাকচারাল স্টিল ওয়েল্ডিং এ ব্যবহৃত হয়।
3. পাইপ থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • পাইপলাইন জোড়া লাগানোর জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা।
4. কেবল থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • বৈদ্যুতিক কেবল সংযোগের জন্য ব্যবহৃত হয়।
5. তামা থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • তামা ও তার মিশ্রধাতু জোড়া লাগানোর জন্য বিশেষ থার্মিট মিশ্রণ ব্যবহার করে।
6. অ্যালুমিনোথার্মিক ওয়েল্ডিং:
  • অ্যালুমিনিয়াম ও তার মিশ্রধাতুর জন্য ব্যবহৃত হয়।
7. সেমি-অটোমেটিক থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • আংশিক স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া যা মানুষের হস্তক্ষেপ কমায়।
8. ফুল-অটোমেটিক থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া, বিশেষত রেলপথে ব্যবহৃত হয়।
9. থার্মিট টেপ ওয়েল্ডিং:
  • একটি বিশেষ টেপ ব্যবহার করে ছোট আকারের জোড় তৈরি করা হয়।
10. হাইব্রিড থার্মিট ওয়েল্ডিং:
  • থার্মিট ওয়েল্ডিং এর সাথে অন্য ওয়েল্ডিং পদ্ধতির সংমিশ্রণ।
প্রতিটি প্রকার নির্দিষ্ট প্রয়োজন ও পরিস্থিতির জন্য উপযুক্ত। ব্যবহারের ক্ষেত্র, জোড়ের আকার, ধাতুর প্রকৃতি, ও প্রয়োজনীয় শক্তির উপর নির্ভর করে সঠিক প্রকার নির্বাচন করা হয়।

এছাড়াও, থার্মিট ওয়েল্ডিং এর কিছু বিশেষ প্রয়োগ রয়েছে:

স্থির থার্মিট ওয়েল্ডিং (Stationary Thermite Welding): এটি বড় এবং ভারী জোড়া লাগানোর জন্য ব্যবহৃত হয় যেখানে ধাতুগুলিকে সরানো সম্ভব নয়।

পোর্টেবল থার্মিট ওয়েল্ডিং (Portable Thermite Welding): এটি ছোট এবং হালকা জোড়া লাগানোর জন্য ব্যবহৃত হয় যেখানে পোর্টেবিলিটি গুরুত্বপূর্ণ।

অন্তর্নির্মিত থার্মিট ওয়েল্ডিং (Embedded Thermite Welding): এটি ধাতুর অংশগুলিকে একত্রিত করার জন্য ব্যবহৃত হয় যা জোড় লাগানোর পরে অ্যাক্সেস করা যায় না।

উল্লেখ্য যে, থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি ক্রমাগত উন্নত হচ্ছে এবং নতুন প্রযুক্তি এবং পদ্ধতি বিকশিত হচ্ছে।

থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়া:

থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি কয়েকটি পর্যায়ে সম্পন্ন হয়।
থার্মিট ওয়েল্ডিং কাকে বলে? থার্মিট ওয়েল্ডিং কত প্রকার ও কি কি? বিস্তারিত আলোচনা

এই প্রক্রিয়ার বিস্তারিত ধাপগুলি নিম্নরূপ:

1. প্রস্তুতি:
  • জোড়া লাগানোর স্থান পরিষ্কার ও মসৃণ করা হয়।
  • ধাতব অংশগুলি সঠিকভাবে সাজানো হয়।
2. মোল্ড স্থাপন:
  • জোড়ার স্থানের চারপাশে একটি ফায়ার-রেজিস্ট্যান্ট মোল্ড স্থাপন করা হয়।
  • মোল্ডটি সাধারণত গ্রাফাইট বা সিলিকা বালু দিয়ে তৈরি হয়।
3. প্রিহিটিং:
  • জোড়ার স্থান এবং আশপাশের অংশ প্রিহিট করা হয়।
  • এটি থার্মাল শক এড়াতে সাহায্য করে।
4. থার্মিট মিশ্রণ প্রস্তুতি:
  • অ্যালুমিনিয়াম পাউডার ও আয়রন অক্সাইডের সঠিক অনুপাতে মিশ্রণ তৈরি করা হয়।
5. রিয়াকশন ক্রুসিবল স্থাপন:
  •  মোল্ডের উপরে একটি ক্রুসিবল স্থাপন করা হয়।
  • থার্মিট মিশ্রণ এই ক্রুসিবলে রাখা হয়।
6. প্রজ্জ্বলন:
  • একটি ম্যাগনেসিয়াম ফিউজ বা স্পেশাল ইগনাইটার ব্যবহার করে থার্মিট মিশ্রণ প্রজ্জ্বলিত করা হয়।
7. বিক্রিয়া:
  • প্রজ্জ্বলনের পর, একটি তীব্র এক্সোথার্মিক বিক্রিয়া শুরু হয়।
  • তাপমাত্রা প্রায় 2500°C পর্যন্ত পৌঁছায়।
8. গলিত ধাতু ঢালাই:
  • গলিত ধাতু ক্রুসিবল থেকে মোল্ডে প্রবাহিত হয়।
  • এটি জোড়ার স্থান পূরণ করে এবং দুটি অংশকে একত্রিত করে।
9. ঠাণ্ডা হওয়া ও জমাট বাঁধা:
  • গলিত ধাতু ধীরে ধীরে ঠাণ্ডা হয় ও জমাট বাঁধে।
  • এই সময়ে জোড়টি শক্ত ও স্থায়ী হয়ে ওঠে।
10. পরিষ্করণ:
  •  মোল্ড অপসারণ করা হয়।
  • অতিরিক্ত ধাতু কেটে ফেলা হয় ও জোড়টি মসৃণ করা হয়।
11. পরীক্ষা:
  • জোড়টির গুণমান পরীক্ষা করা হয়, যেমন এক্স-রে বা আল্ট্রাসোনিক টেস্টিং এর মাধ্যমে।
  • এই প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত তাপ ও বিপজ্জনক রাসায়নিক বিক্রিয়া জড়িত থাকায় বিশেষ সতর্কতা ও দক্ষতার প্রয়োজন হয়।

থার্মিট ওয়েল্ডিং এর ব্যবহার:

থার্মিট ওয়েল্ডিং বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় যেখানে শক্তিশালী, মজবুত এবং দীর্ঘস্থায়ী সংযোগ প্রয়োজন।
থার্মিট ওয়েল্ডিং কাকে বলে? থার্মিট ওয়েল্ডিং কত প্রকার ও কি কি? বিস্তারিত আলোচনা

থার্মিট ওয়েল্ডিং, লোহা জোড়া লাগানোর জন্য একটি রাসায়নিক ওয়েল্ডিং পদ্ধতি, বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এর উচ্চ তাপমাত্রা এবং মজবুত জোড় তৈরির ক্ষমতা এটিকে নির্দিষ্ট প্রয়োগের জন্য উপযুক্ত করে তোলে। থার্মিট ওয়েল্ডিং এর কিছু উল্লেখযোগ্য ব্যবহার নীচে তালিকাভুক্ত করা হল:

1. রেলপথ:
  • থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রধানত রেললাইন সংযোগের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। এটি রেললাইনগুলোর মধ্যে মজবুত সংযোগ তৈরি করে, যা ট্রেনের ওজন ও গতি সহ্য করতে সক্ষম।
  • রেল লাইনের জোড়া লাগানোর জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং একটি সাধারণ পদ্ধতি।
  • এটি দীর্ঘস্থায়ী এবং মসৃণ জোড় তৈরি করে যা ট্রেনের চলাচলের জন্য টেকসই।
  • লাইন মেরামত এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এটি একটি দ্রুত এবং কার্যকর সমাধান।
2. জাহাজ নির্মাণ:
  • জাহাজের হুল, ডেক এবং অন্যান্য কাঠামোগত উপাদানগুলি জোড়া লাগানোর জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়।
  • এটি বড় এবং ভারী ধাতব অংশগুলির জন্য উপযুক্ত, যেখানে উচ্চ তাপমাত্রা এবং শক্তি প্রয়োজন।
  • মেরামত এবং নতুন নির্মাণ উভয়ের জন্যই এটি ব্যবহার করা যেতে পারে।
3. ভারী যন্ত্রপাতি:
  • ক্রেন, নির্মাণ যন্ত্রপাতি এবং অন্যান্য ভারী যন্ত্রপাতির জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়।
  • এটি জটিল আকৃতি এবং বড় আকারের ধাতব অংশগুলির জন্য উপযুক্ত।
  • মেরামত এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এটি একটি টেকসই এবং নির্ভরযোগ্য সমাধান।
4. পাইপলাইন:
  • বড় পাইপলাইনের সংযোগের জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়। এটি উচ্চ চাপ এবং তাপমাত্রা সহ্য করতে পারে, যা বিভিন্ন তরল এবং গ্যাস পরিবহনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।
  • বড় ব্যাসের পাইপলাইন জোড়া লাগানোর জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়।
  • এটি উচ্চ চাপযুক্ত পরিস্থিতিতে ব্যবহৃত হতে পারে এমন শক্তিশালী জোড় তৈরি করে।
  • পানি, তেল এবং গ্যাস পাইপলাইনের জন্য এটি একটি সাধারণ পদ্ধতি।
5. কৃষি সরঞ্জাম:
  • ট্র্যাক্টর, কম্বাইন এবং অন্যান্য কৃষি সরঞ্জামের জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়।
  • এটি ভারী চাপ এবং ক্ষয়ের জন্য প্রতিরোধী এমন টেকসই জোড় তৈরি করে।
  • মেরামত এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য এটি একটি সাশ্রয়ী মূল্যের এবং কার্যকর সমাধান।
6. শিল্প ও নির্মাণ:
  • বড় স্ট্রাকচারাল উপাদান যেমন ব্রিজ, বিল্ডিং এবং অন্যান্য ভারী কাঠামো সংযোগের জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়।
7. সামরিক ও এরোস্পেস:
  • সামরিক যানবাহন এবং এরোস্পেস কাঠামো সংযোগের জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়। এটি উচ্চ ক্ষমতা এবং নির্ভরযোগ্যতা প্রদান করে।
8. মেরিন ও শিপবিল্ডিং:
  • জাহাজ ও সাবমেরিনের ধাতব অংশ সংযোগের জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়। এটি সামুদ্রিক পরিবেশের খারাপ পরিবেশ সহ্য করতে পারে।
9. মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণ:
  • থার্মিট ওয়েল্ডিং রেললাইন, পাইপলাইন, এবং অন্যান্য বড় কাঠামোর মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়।
10. বৈদ্যুতিক সংযোগ:
  • বড় বৈদ্যুতিক কন্ডাক্টর এবং তারের সংযোগের জন্য থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহৃত হয়। এটি কম প্রতিরোধ এবং উচ্চ প্রবাহ ক্ষমতা নিশ্চিত করে।
11. অন্যান্য ব্যবহার:
  • থার্মিট ওয়েল্ডিং ব্যবহার করে স্থাপত্য কাঠামো, মেশিনের অংশ এবং অন্যান্য ধাতব উপাদানগুলি জোড়া লাগানো যেতে পারে। যেখানে উচ্চ তাপমাত্রা এবং শক্তি প্রয়োজন সেখানে এটি একটি বহুমুখী পদ্ধতি।

থার্মিট ওয়েল্ডিং এর সুবিধা ও অসুবিধা

থার্মিট ওয়েল্ডিং এর সুবিধা ও অসুবিধাগুলি নিম্নরূপ:

থার্মিট ওয়েল্ডিং এর সুবিধা:

  • উচ্চ তাপমাত্রা: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ায় খুব উচ্চ তাপমাত্রা সৃষ্টি হয়, যা ধাতব সংযোগকে মজবুত এবং দীর্ঘস্থায়ী করে।
  • দীর্ঘস্থায়ী সংযোগ: থার্মিট ওয়েল্ডিং দ্বারা তৈরি সংযোগ খুবই শক্ত এবং দীর্ঘস্থায়ী হয়, যা ভারী এবং দায়িত্বপূর্ণ কাঠামোর জন্য আদর্শ।
  • শক্তিশালী জোড়: থার্মিট ওয়েল্ডিং দ্রুত এবং শক্তিশালী জোড়া তৈরি করে। উচ্চ তাপমাত্রায় সম্পন্ন হওয়ায় অত্যন্ত মজবুত ও টেকসই জোড় তৈরি হয়।
  • বড় আকারের কাজের জন্য উপযুক্ত: বিশাল আকারের ধাতব কাঠামো জোড়া লাগানোর জন্য আদর্শ।
  • সহজ: এটি ব্যবহার করা সহজ, বিশেষ করে বড় জোড়া দেওয়ার জন্য।
  • সস্তা: থার্মিট ওয়েল্ডিং অন্যান্য ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ার তুলনায় কম খরচে করা যায়।
  • দ্রুত প্রক্রিয়া: তুলনামূলকভাবে কম সময়ে বড় জোড় তৈরি করা যায়।
  • পোর্টেবিলিটি: যন্ত্রপাতি সহজে স্থানান্তরযোগ্য, যা দুর্গম স্থানে কাজ করার জন্য উপযোগী। থার্মিট ওয়েল্ডিং সরঞ্জাম সহজে পরিবহন করা যায়। থার্মিট ওয়েল্ডিং সরঞ্জামগুলি তুলনামূলকভাবে পোর্টেবল, যা এটিকে বিচ্ছিন্ন স্থানে ওয়েল্ডিংয়ের জন্য উপযুক্ত করে তোলে।
  • মজবুত এবং দীর্ঘস্থায়ী জোড়: থার্মিট ওয়েল্ডিং মজবুত এবং দীর্ঘস্থায়ী জোড় তৈরি করে যা উচ্চ চাপ, টান এবং ক্ষয়ের জন্য প্রতিরোধী। এটি একটি স্থায়ী সংযোগ প্রদান করে যা উচ্চ চাপ ও ভার সহ্য করতে সক্ষম। এটি রেলপথ, জাহাজ নির্মাণ এবং ভারী যন্ত্রপাতির মতো কঠোর পরিবেশে ব্যবহৃত জোড়গুলির জন্য আদর্শ।
  • বহুমুখিতা: থার্মিট ওয়েল্ডিং বিভিন্ন ধরণের ধাতুর সাথে ব্যবহার করা যেতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে ইস্পাত, লোহা, ঢালাই লোহা এবং তামা। এটি বিভিন্ন আকার এবং আকৃতির জোড়া লাগানোর জন্যও উপযুক্ত।
  • কার্যকারিতা: থার্মিট ওয়েল্ডিং একটি তুলনামূলকভাবে দ্রুত এবং কার্যকর ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়া। এটি বড় জোড়া লাগানোর জন্য বিশেষভাবে উপযোগী, যেখানে অন্যান্য ওয়েল্ডিং পদ্ধতিগুলি সময়সাপেক্ষ এবং জটিল হতে পারে।
  • মিনিমাল সরঞ্জামের প্রয়োজন: প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে তুলনামূলকভাবে কম সরঞ্জাম লাগে।
  • বহিরাগত শক্তি বা তাপ উৎসের প্রয়োজন নেই: থার্মিট ওয়েল্ডিং একটি বহিঃতাপীয় প্রক্রিয়া, যার মানে হল এটি জোড় লাগানোর জন্য বাইরের কোন তাপ উৎসের প্রয়োজন হয় না। এটি এমন পরিবেশে ওয়েল্ডিংয়ের জন্য উপযোগী করে তোলে যেখানে বিদ্যুৎ বা গ্যাসের অ্যাক্সেস সীমিত। থার্মিট মিশ্রণ নিজেই রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে তাপ উৎপন্ন করে, তাই অতিরিক্ত শক্তি উৎসের প্রয়োজন হয় না।
  • সমান গুণমান: সঠিকভাবে সম্পন্ন হলে জোড়ের গুণমান সর্বত্র একই থাকে।
  • বিদ্যুৎ নির্ভরতা নেই: বাহ্যিক বিদ্যুৎ সরবরাহের প্রয়োজন হয় না।
  • কোনো ক্ষতিকারক গ্যাস নেই: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ায় ক্ষতিকারক গ্যাস নির্গত হয় না, যা পরিবেশের জন্য নিরাপদ।

থার্মিট ওয়েল্ডিং এর অসুবিধা:

  • জটিল প্রক্রিয়া: থার্মিট ওয়েল্ডিং একটি জটিল প্রক্রিয়া যা দক্ষ ও অভিজ্ঞ কর্মীদের দ্বারা সম্পন্ন করতে হয়। সঠিক প্রশিক্ষণ এবং অভিজ্ঞতা ছাড়া, জোড়টি দুর্বল বা ত্রুটিপূর্ণ হতে পারে।
  • তাপ: থার্মিট ওয়েল্ডিং অত্যন্ত উচ্চ তাপমাত্রায় কাজ করে, যা ক্ষতির কারণ হতে পারে।
  • নিয়ন্ত্রণ: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন।
  • ধোঁয়া: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ার সময় বিপজ্জনক ধোঁয়া উৎপন্ন হয়।
  • সীমাবদ্ধতা: থার্মিট ওয়েল্ডিং সব ধরণের ধাতুতে ব্যবহার করা যায় না।
  • উচ্চ তাপমাত্রা: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটিতে উচ্চ তাপমাত্রা জড়িত থাকে, যা আশেপাশের এলাকায় ক্ষতি করতে পারে এবং কর্মীদের জন্য নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।
  • উচ্চ তাপমাত্রা ও বিপদ: প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত উচ্চ তাপমাত্রায় সম্পন্ন হয়, যা বিপজ্জনক হতে পারে।
  • দক্ষতার প্রয়োজন: প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে অভিজ্ঞ ও দক্ষ অপারেটর প্রয়োজন।
  • সীমিত ধাতু ব্যবহার: সব ধরনের ধাতুর জন্য উপযুক্ত নয়, প্রধানত লোহা ও ইস্পাতের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • নিয়ন্ত্রণের অভাব: একবার বিক্রিয়া শুরু হলে থামানো কঠিন, যা নিয়ন্ত্রণ কমিয়ে দেয়।
  • পরিবেশগত প্রভাব: প্রক্রিয়াটি ধোঁয়া ও বিষাক্ত গ্যাস উৎপন্ন করতে পারে।
  • উচ্চ খরচ: অন্যান্য ওয়েল্ডিং পদ্ধতির তুলনায় খরচ বেশি হতে পারে।
  • প্রস্তুতির সময়: মোল্ড তৈরি ও অন্যান্য প্রস্তুতি সময়সাপেক্ষ হতে পারে।
  • অতিরিক্ত পরিষ্করণের প্রয়োজন: জোড়ের স্থানে অতিরিক্ত ধাতু জমে যেতে পারে, যা পরে অপসারণ করতে হয়।
  • প্রতিস্থাপন কঠিন: থার্মিট ওয়েল্ডিংয়ের ফলে সংযোগ খুবই মজবুত হয়, তাই প্রতিস্থাপন বা মেরামত করা কঠিন।
  • নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন: প্রক্রিয়াটি সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হতে পারে, বিশেষ করে যদি সঠিক সরঞ্জাম বা অভিজ্ঞতা না থাকে।
  • তাপমাত্রার প্রভাব: উচ্চ তাপমাত্রার কারণে কাছাকাছি অংশগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
  • সীমিত প্রয়োগ ক্ষেত্র: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রধানত রেললাইন এবং বড় ধাতব কাঠামোর জন্য ব্যবহৃত হয়, ছোট এবং সূক্ষ্ম কাজের জন্য উপযুক্ত নয়।
  • ধীরগতি: অন্যান্য ওয়েল্ডিং পদ্ধতির তুলনায় প্রক্রিয়াটি ধীর গতির।
  • বিষাক্ত ধোঁয়া: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়া বিষাক্ত ধোঁয়া উৎপন্ন করে যা শ্বাস নেওয়ার জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। উপযুক্ত বায়ুচলাচল এবং শ্বাসযন্ত্রের সুরক্ষা ব্যবহার করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অসুবিধা: থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি অনেক অবশিষ্টাংশ এবং স্লাগ(Slag) তৈরি করে যা পরিষ্কার করা কষ্টকর।
এই সুবিধা ও অসুবিধাগুলো বিবেচনা করে থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি কোথায় এবং কখন ব্যবহার করা হবে তা নির্ধারণ করা হয়।

এটা বেশ স্পষ্ট যে থার্মিট ওয়েল্ডিং এর সুবিধা ও অসুবিধা আছে। এটি কখন ব্যবহার করা উচিত তা নির্ধারণ করার জন্য আপনাদের নির্দিষ্ট প্রয়োজনীয়তা বিবেচনা করা উচিত।

থার্মিট ওয়েল্ডিং এ AI ও লৌহ অক্সাইডের অনুপাত কত?

থার্মিট ওয়েল্ডিং এ Al ও লৌহ অক্সাইড এর অনুপাত থাকে 3:1, থার্মিট ওয়েল্ডিং এ প্রয়োজনীয় তাপ পাওয়া যায় থার্মিট মিক্সার - এর তাপোৎপাদী বিক্রিয়া থেকে। যেমন - 3Fe₃O₄ + 8AI →9Fe + 4AI₂O₃ + heat (3000°C, 35 kJ/kg of mixture) এতে প্রায় 3000˚C তাপমাত্রা উৎপন্ন হয়।

রেলপথে থার্মাইট ঢালাই করা হয় কেন?

রেলপথে থার্মাইট ঢালাই ব্যবহার করা হয় কারণ এটি একটি শক্তিশালী এবং দীর্ঘস্থায়ী জোড় তৈরি করে যা উচ্চ চাপ এবং টান সহ্য করতে পারে। রেলপথের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ ট্রেনগুলির ভারী ওজন এবং দ্রুত গতির কারণে রেল লাইনের উপর প্রচুর চাপ পড়ে।
থার্মিট ওয়েল্ডিং কাকে বলে? থার্মিট ওয়েল্ডিং কত প্রকার ও কি কি? বিস্তারিত আলোচনা

রেলপথে থার্মাইট ঢালাই (thermite welding) করা হয় বিশেষত রেললাইনের সংযোগ স্থাপনের জন্য। এর কয়েকটি প্রধান কারণ হলো:

১. মজবুত সংযোগ:
থার্মাইট ঢালাইয়ের মাধ্যমে রেললাইন সংযোগ খুবই শক্ত এবং মজবুত হয়, যা উচ্চ চাপ ও ভার সহ্য করতে সক্ষম। এটি রেললাইনকে স্থিতিশীল এবং দীর্ঘস্থায়ী করে তোলে।

২. নির্ভরযোগ্যতা:
এই প্রক্রিয়া দ্বারা তৈরি সংযোগ খুবই নির্ভরযোগ্য, যা যাত্রী এবং পণ্যবাহী ট্রেনের নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত করে।

৩. বাহ্যিক শক্তি উৎসের প্রয়োজন নেই:
থার্মাইট ঢালাই প্রক্রিয়ায় নিজেই রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে তাপ উৎপন্ন হয়, তাই অতিরিক্ত বাহ্যিক শক্তি উৎসের প্রয়োজন হয় না। এটি রেললাইনের দূরবর্তী স্থানে কাজ করার জন্য আদর্শ।

৪. তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ:
থার্মাইট ঢালাই উচ্চ তাপমাত্রায় সম্পন্ন হয়, যা ধাতব অংশগুলোকে সঠিকভাবে মিশ্রিত করে মজবুত সংযোগ তৈরি করে। এই তাপমাত্রা রেললাইনের উপাদানকে ঠিকভাবে মিশ্রিত করে।

৫. লম্বা রেলপথ তৈরি:
থার্মাইট ঢালাইয়ের মাধ্যমে রেলপথের একক সংযোগ তৈরি করা সম্ভব, যা ট্রেনের চলাচলের সময় কম কম্পন এবং শব্দ তৈরি করে। এটি ট্রেনের গতি এবং স্থিতিশীলতা উন্নত করে।

৬. প্রতিস্থাপন ও মেরামত সহজ:
রেলপথের ছোট অংশ মেরামত বা প্রতিস্থাপন করতে থার্মাইট ঢালাই ব্যবহৃত হয়, যা দ্রুত এবং কার্যকরভাবে সম্পন্ন করা যায়।

৭. পোর্টেবল সুবিধা:
থার্মাইট ঢালাই প্রক্রিয়া পোর্টেবল, তাই রেললাইনের যেকোনো স্থানে এটি প্রয়োগ করা সহজ।

৮. দীর্ঘস্থায়ী:
থার্মাইট জোড় দীর্ঘস্থায়ী হয়, যা রক্ষণাবেক্ষণের খরচ কমায়।

৯. তাপমাত্রা পরিবর্তন সহ্যক্ষমতা:
এই জোড় তাপমাত্রার হ্রাস-বৃদ্ধি ভালোভাবে সহ্য করতে পারে, যা মৌসুমি পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ।

১০. শক্তিশালী জোড়:
এই প্রক্রিয়ায় তৈরি জোড় অত্যন্ত মজবুত হয়, যা ভারী ট্রেনের ভার সহ্য করতে পারে। জোড়ের স্থানে রেলের শক্তি মূল রেলের সমান বা বেশি হয়।

১১. দ্রুত সম্পন্ন:
অন্যান্য পদ্ধতির তুলনায় এই প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করা যায়, যা ট্রাফিক বাধা কমায়।

১২. রক্ষণাবেক্ষণ সহজ:
জোড়ের সংখ্যা কম হওয়ায় রক্ষণাবেক্ষণ সহজ হয়।

১৩. বিভিন্ন পরিবেশে কার্যকর:
এই প্রক্রিয়া বিভিন্ন আবহাওয়া ও পরিবেশে কার্যকর, এমনকি দুর্গম এলাকায়ও।

১৪. নিরবচ্ছিন্ন রেলপথ:
থার্মাইট ঢালাই রেলের টুকরাগুলিকে একত্রিত করে একটি নিরবচ্ছিন্ন রেলপথ তৈরি করে। এটি ট্রেনের চলাচলে মসৃণতা বাড়ায় এবং যাত্রীদের আরাম বৃদ্ধি করে।

১৫. কম ধ্বনি ও কম্পন:
নিরবচ্ছিন্ন রেলপথ ট্রেন চলাচলে কম ধ্বনি ও কম্পন সৃষ্টি করে।

১৬. কম ব্যয়বহুল:
দীর্ঘমেয়াদে, এই পদ্ধতি অন্যান্য জোড় পদ্ধতির তুলনায় কম ব্যয়বহুল।

এই কারণগুলির জন্য, থার্মাইট ঢালাই রেলপথ নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণে একটি প্রধান পদ্ধতি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এটি রেলপথের গুণমান, নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা উন্নত করে। এই কারণগুলো বিবেচনা করে রেলপথে থার্মাইট ঢালাই একটি জনপ্রিয় এবং কার্যকর পদ্ধতি হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

থার্মিট ওয়েল্ডিং কেন ব্যবহার করা হয়?

থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রায়শই ভাঙা গিয়ার দাঁত প্রতিস্থাপন, ভাঙা কাঁচি মেরামত এবং রেল, ট্রাক ফ্রেম এবং লোকোমোটিভ ফ্রেম ইত্যাদিতে ব্যবহার করা হয়।
থার্মিট ওয়েল্ডিং কাকে বলে? থার্মিট ওয়েল্ডিং কত প্রকার ও কি কি? বিস্তারিত আলোচনা

থার্মিট ওয়েল্ডিং শুরু করার আগে প্রিহিটিং শিখা ব্যবহারের মূল উদ্দেশ্য কী?

থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ায় প্রিহিটিং শিখা ব্যবহারের মূল উদ্দেশ্যগুলো হলো:

১. তাপমাত্রার সামঞ্জস্যতা:
প্রিহিটিং করার মাধ্যমে সংযোগের ধাতব অংশগুলোর তাপমাত্রা সমান করা হয়। এতে করে থার্মিট ঢালাই করার সময় তাপমাত্রার হঠাৎ পরিবর্তন হয় না এবং সংযোগটি মজবুত ও সমান হয়।

২. অক্সাইড এবং দূষণ দূর করা:
প্রিহিটিংয়ের মাধ্যমে ধাতব অংশগুলোর পৃষ্ঠে থাকা অক্সাইড, তেল, ময়লা এবং অন্যান্য দূষণ দূর করা হয়। এটি ধাতব পৃষ্ঠ থেকে অক্সাইড স্তর অপসারণ করে। এটি ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ায় সংযোগের গুণগত মান উন্নত করে।

৩. ধাতব অংশের প্রসারণ:
প্রিহিটিংয়ের মাধ্যমে ধাতব অংশগুলো সামান্য প্রসারিত হয়, যা ঢালাইয়ের সময় ক্র্যাক বা ফাটল প্রতিরোধ করে।

৪. তাপমাত্রার ধীরে ধীরে পরিবর্তন:
প্রিহিটিং করার ফলে তাপমাত্রা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায়, যা ধাতব অংশগুলোতে তাপীয় চাপ কমায় এবং ক্র্যাকিং বা বিকৃতি প্রতিরোধ করে।

৫. গলন তাপমাত্রা নিশ্চিত করা:
প্রিহিটিং করার মাধ্যমে সংযোগের ধাতব অংশগুলোতে পর্যাপ্ত তাপ সরবরাহ করা হয়, যা থার্মিট মিশ্রণটি গলন তাপমাত্রায় পৌঁছাতে সাহায্য করে এবং ভালো সংযোগ নিশ্চিত করে।

৬. প্রক্রিয়ার নিয়ন্ত্রণ সহজ করা:
প্রিহিটিংয়ের মাধ্যমে পুরো প্রক্রিয়াটি নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হয় এবং সংযোগের মান উন্নত হয়।

৭. জোড় লাগানোর এলাকা পরিষ্কার এবং শুষ্ক করা:
প্রিহিটিং শিখা জোড় লাগানোর এলাকা থেকে তেল, চর্বি, ময়লা এবং জলের মতো অপরিচ্ছন্নতা অপসারণ করতে সাহায্য করে। এটি একটি শক্তিশালী এবং দীর্ঘস্থায়ী জোড় তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় একটি পরিষ্কার এবং শুষ্ক পৃষ্ঠ তৈরি করে।

৮. জোড় লাগানোর এলাকা গরম করা:
প্রিহিটিং শিখা জোড় লাগানোর এলাকাকে গরম করে, যা থার্মিট প্রতিক্রিয়াকে আরও সহজ এবং দ্রুত করে তোলে। উচ্চ তাপমাত্রা অ্যালুমিনিয়াম এবং লোহার অক্সাইডকে দ্রুত গলে যাওয়া এবং মিশ্রিত হতে সাহায্য করে, যার ফলে শক্তিশালী এবং নির্ভরযোগ্য জোড় তৈরি হয়।

১০. আর্দ্রতা অপসারণ:
প্রিহিটিং শিখা ওয়েল্ডিং স্থান থেকে আর্দ্রতা অপসারণ করে। আর্দ্রতা থার্মিট প্রতিক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে এবং দুর্বল জোড়ের দিকে নিয়ে যেতে পারে। এটি হাইড্রোজেন ক্র্যাকিং এর ঝুঁকি কমায়।

১১. অক্সিডেশন প্রতিরোধ:
প্রিহিটিং শিখা জোড় লাগানোর এলাকায় অক্সিডেশন প্রতিরোধ করে। অক্সিডেশন একটি আবরণ তৈরি করতে পারে যা থার্মিট প্রতিক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে এবং দুর্বল জোড়ের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

 ১২. থার্মাল শক প্রতিরোধ:
ধাতব অংশগুলির তাপমাত্রা ধীরে ধীরে বাড়ায়। হঠাৎ উচ্চ তাপমাত্রার কারণে ফাটল তৈরির সম্ভাবনা কমায়।

১৩. তাপীয় প্রসারণ:
ধাতব অংশগুলির সামান্য প্রসারণের সুযোগ দেয়। এটি জোড়ের মান উন্নত করে।

১৪. দ্রুত তাপ বিতরণ:
জোড়ের স্থানে সমান তাপ বিতরণ নিশ্চিত করে। এটি একসমান জোড় তৈরি করতে সাহায্য করে।

১৫. মোল্ড রক্ষা:
মোল্ডকে ধীরে ধীরে গরম করে। হঠাৎ উচ্চ তাপমাত্রায় মোল্ডের ক্ষতি প্রতিরোধ করে।

১৬. বিক্রিয়া শুরু সহজ করা:
থার্মিট বিক্রিয়া শুরু হওয়ার জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে।

১৭. তাপীয় চাপ হ্রাস:
জোড়ের স্থানে তাপীয় চাপ কমায়। এটি ফাটল তৈরির সম্ভাবনা হ্রাস করে।

১৮. পোরোসিটি কমানো:
উচ্চ তাপমাত্রায় গ্যাস বুদবুদ বের হয়ে যায়। এটি জোড়ে পোরোসিটি কমায়।

১৯. গলনাংক অর্জন সহজ করা:
ধাতব অংশগুলির তাপমাত্রা বাড়িয়ে গলনাংক অর্জন সহজ করে। এটি থার্মিট বিক্রিয়ার কার্যকারিতা বাড়ায়।

২০. ক্র্যাকিং প্রতিরোধের জন্য:
ধাতুকে প্রিহিট করা ক্র্যাকিং ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে, যা উচ্চ তাপমাত্রায় ধাতুতে ঘটতে পারে।

২১. ধাতুকে উষ্ণ করার জন্য:
থার্মিট ওয়েল্ডিংয়ের জন্য উচ্চ তাপমাত্রা প্রয়োজন। প্রিহিটিং ধাতুকে উষ্ণ করে থার্মিটের তাপমাত্রা দ্রুত বৃদ্ধি পেতে সাহায্য করে এবং জোড়টি দ্রুত গলে যায়।

এই কারণে থার্মিট ওয়েল্ডিং শুরুর আগে প্রিহিটিং করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি সংযোগের গুণগত মান এবং স্থায়িত্ব নিশ্চিত করে, যা ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়ার সাফল্যের জন্য অপরিহার্য।

থার্মিট ওয়েল্ডিং শুরু করার আগে প্রিহিটিং শিখা ব্যবহার করা একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ যা শক্তিশালী, দীর্ঘস্থায়ী এবং নির্ভরযোগ্য জোড় তৈরি করতে সহায়তা করে।

উল্লেখ্য যে, প্রিহিটিং শিখা ব্যবহার না করা হলে থার্মিট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা সম্ভব। তবে, এটি একটি দুর্বল এবং নিম্নমানের জোড়া তৈরি হয়।

প্রিহিটিং শিখা ব্যবহারের কিছু নির্দেশিকা:

  • জোড় লাগানোর এলাকা সমানভাবে গরম করতে শিখা সাবধানে সরান।
  • অতিরিক্ত তাপ এড়াতে জোড় লাগানোর এলাকা অতিরিক্ত গরম করবেন না।
  • প্রিহিটিং শিখা ব্যবহারের সময় সতর্কতা অবলম্বন করুন এবং উপযুক্ত সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার করুন।

থার্মাইট ওয়েল্ডিং কে আবিষ্কার করেন?

থার্মাইট ওয়েল্ডিং এর আবিষ্কারক ছিলেন জার্মান রসায়নবিদ হ্যান্স গোল্ডস্মিট (Hans Goldschmidt)। তিনি ১৮৯৩ সালে এই প্রক্রিয়াটি উদ্ভাবন করেন এবং পরে ১৮৯৫ সালে একটি পেটেন্ট নেন। গোল্ডস্মিটের এই প্রক্রিয়াটি প্রথমে "গোল্ডস্মিট প্রক্রিয়া" নামে পরিচিত ছিল। এই প্রক্রিয়া মূলত ধাতব অক্সাইড এবং অ্যালুমিনিয়াম পাউডার মিশ্রণকে রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে গলিত ধাতু তৈরি করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি রেললাইন এবং অন্যান্য ধাতব কাঠামোর মজবুত সংযোগের জন্য বিশেষভাবে কার্যকর।

থার্মাইট ওয়েল্ডিং আবিষ্কারের জন্য একক ব্যক্তিকে দায়ী করা যায় না। এটি বিভিন্ন বিজ্ঞানী এবং প্রকৌশলীর কাজের মাধ্যমে ধীরে ধীরে বিকশিত হয়েছিল।

১৯ শতকের শুরুতে:
  • হ্যান্স ম্যাগনাস হেস (Hans Magnus Hess): 1830 সালে, জার্মান রসায়নবিদ হেস অ্যালুমিনিয়ামের সাথে লোহার অক্সাইডের বিক্রিয়ার মাধ্যমে তীব্র তাপ উৎপন্ন করার পদ্ধতি আবিষ্কার করেন।
  • সার্জেই ক্রুপোফ (Sergei Krupp): 1865 সালে, রাশিয়ান প্রকৌশলী ক্রুপোফ এই বিক্রিয়াকে জোড়া লাগানোর জন্য ব্যবহার করার ধারণা প্রস্তাব করেন।
১৯ শতকের শেষের দিকে:
  • ফ্রেডরিক হেস (Friedrich Hess): 1893 সালে, হেসের পুত্র, ফ্রেডরিক, থার্মাইট নামে পরিচিত অ্যালুমিনিয়াম এবং লোহার অক্সাইডের মিশ্রণ তৈরি করেন।
  • হানস গোল্ডস্মিট (Hans Goldschmidt): 1895 সালে, জার্মান রসায়নবিদ গোল্ডশ্মিট থার্মাইট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি বাণিজ্যিকভাবে বিকশিত করেন এবং এটি রেলপথ, জাহাজ নির্মাণ এবং অন্যান্য শিল্পে ব্যবহারের জন্য প্রচার করেন।
২০ শতকের শুরুতে:
  • থার্মাইট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি বিশ্বজুড়ে দ্রুত গ্রহণযোগ্যতা লাভ করে। বিভিন্ন উন্নতি এবং নতুন প্রযুক্তি বিকশিত হয়।
  • থার্মাইট ওয়েল্ডিং প্রক্রিয়াটি জার্মান রসায়নবিদ হানস গোল্ডশমিট (Hans Goldschmidt) আবিষ্কার করেন। এই আবিষ্কারের বিষয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:
1. আবিষ্কারক:
  • হানস গোল্ডস্মিট (1861-1923)।
  • তিনি একজন জার্মান রসায়নবিদ ও উদ্ভাবক ছিলেন।
2. আবিষ্কারের সময়:
  • 1893-1898 সালের মধ্যে তিনি এই প্রক্রিয়া আবিষ্কার ও উন্নত করেন।
3. পেটেন্ট:
  • 1895 সালে তিনি এই প্রক্রিয়ার জন্য পেটেন্ট আবেদন করেন।
4. প্রাথমিক উদ্দেশ্য:
  • প্রথমে তিনি এই প্রক্রিয়া শুদ্ধ ধাতু উৎপাদনের জন্য উদ্ভাবন করেছিলেন।
  • পরে এর ওয়েল্ডিং ক্ষমতা আবিষ্কৃত হয়।
5. প্রথম বাণিজ্যিক ব্যবহার:
  • 1899 সালে এসেন, জার্মানিতে প্রথম বাণিজ্যিকভাবে এই প্রক্রিয়া ব্যবহৃত হয়।
6. রেলপথে ব্যবহার:
  • 1904 সালে প্রথম রেলপথে এই প্রক্রিয়া ব্যবহার করা হয়।
7. থার্মাইট প্রতিক্রিয়া:
  • গোল্ডশমিট এই প্রতিক্রিয়াকে "থার্মাইট প্রতিক্রিয়া" নাম দেন।
8. কোম্পানি প্রতিষ্ঠা:
  • তিনি Th. Goldschmidt AG নামে একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন যা এই প্রযুক্তি বাণিজ্যিকীকরণ করে।
9. অন্যান্য ব্যবহার:
  • গোল্ডস্মিট এই প্রক্রিয়া ধাতু নিষ্কাশন ও শুদ্ধিকরণেও ব্যবহার করেন।
10. ঐতিহাসিক প্রভাব:
  • এই আবিষ্কার শিল্প ও পরিবহন ক্ষেত্রে একটি যুগান্তকারী পরিবর্তন আনে।
হানস গোল্ডস্মিট এই আবিষ্কার আধুনিক শিল্প ও পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। বিশেষ করে রেলপথ নির্মাণে এর প্রভাব অপরিসীম। থার্মাইট ওয়েল্ডিং একটি প্রমাণিত এবং নির্ভরযোগ্য ওয়েল্ডিং পদ্ধতি যা বিভিন্ন ধরণের ধাতব জোড়া লাগানোর জন্য ব্যবহৃত হয়।

উল্লেখ্য যে, থার্মাইট ওয়েল্ডিং আবিষ্কারের ক্ষেত্রে আরও অনেক বিজ্ঞানী এবং প্রকৌশলীর অবদান ছিল।
Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url